Home Privacy Policy Disclaimer Sitemap Contact About
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১৬ অপরাহ্ন

ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট ২৪৪ দিন কোথায় ছিলেন উত্তর দিলেন আইজি প্রিজনস

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৮ আগস্ট, ২০২১
  • ১৯ আপডেট পোস্ট

কাসিনোকাণ্ডে ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর থেকে কারাগারে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। কিন্তু সম্প্রতি একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে প্রতিবেদন প্রচার হয় কারাগার থেকে ২৪৪ দিন উধাও ছিলেন সম্রাট। এরপর থেকে শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা।

এদিকে এই সংবাদ প্রচারের পর এটিকে ‘ভুল তথ্য’ বলে দাবি করেছেন, কারা অধিদফতর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

তাদের দাবি, একজন আসামির হাসপাতাল থেকে ২৪৪ দিন উধাও হওয়ার কোন সুযোগ নেই। সম্রাট হাসপাতালেই ছিলেন। এখনো তিনি হাসপাতালের করনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) চিকিৎসাধীন আছেন।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের তথ্য অনুযায়ী, সম্রাট ২০২০ সালের ২৪ নভেম্বর থেকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি রয়েছেন। তবে সম্প্রতি একটি গণমাধ্যমে দেওয়া বক্তব্যে বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, সম্রাট ২০২১ সালের ২৬ জুলাই বিএসএমএমইউতে ভর্তি হন। এর আগে তিনি কারাগারে ছিলেন।

উপাচার্যের এমন বক্তব্যের পর প্রশ্ন উঠে তাহলে ২৪ নভেম্বর থেকে পরের বছরের ২৬ জুলাই মোট ২৪৪ দিন কোথায় ছিলেন সম্রাট।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কারা মহাপরিদর্শক (আইজি-প্রিজন্স) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মোমিনুর রহমান মামুন গণমাধ্যমকে জানান, ‘ঘটনা কিছুই না। তারা কিসের ভিত্তিতে এটা বলেছে আমার জানা নেই। আমাদের কাছে যে তথ্য প্রমাণ আছে এতে সম্রাটের হাসপাতালের বাইরে যাওয়ার থাকার সুযোগ নেই। আমি বিএসএমএমইউ’র উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলেছি। তার তাৎক্ষনিকভাবে যতটুকু জানা ছিল, তিনি ততটুকুই বলেছেন। তার বক্তব্য অসম্পূর্ণ ছিল, সেটা অসম্পূর্ণভাবেই প্রচার করা হয়েছে।’

এদিকে সম্রাটের উধাও হওয়ার সংবাদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ। তারা জানায়, সম্রাট বিএসএমএমইউতে ছিল। এ বিষয়ে প্রতি ১৫ দিন পর পর পর হাসপাতালের সঙ্গে কারাগারের কথা হয়েছে। এছাড়াও হাসপাতালে কারারক্ষী, শাহবাগ থানা পুলিশ, স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি) পুলিশ, এনএসআইসহ বেশ কয়েকটি গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা থাকেন। কোনোভাবেই হাসপাতালের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই।

কারা কর্তৃপক্ষের হিসেব অনুযায়ী সম্রাট ২০১৯ সালের অক্টোবরে ৫ দিন জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে, একই বছরের নভেম্বর থেকে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯ মাস ১৯ দিন বিএসএমএমইউ, সেখান থেকে ১৫ দিনের জন্য জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে, জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল থেকে ১১ দিনের জন্য বিএসএমএমইউতে, সেখান থেকে ৬ দিনের জন্য জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে যান। সর্বশেষ ২০২০ সালের ২৪ নভেম্বর থেকে তিনি বিএসএমএমইউতেই ভর্তি আছেন। সূত্র: ঢাকাপোস্ট

এই খবর শেয়ার করে আপনার টাইমলাইনে রেখে দিন Tmnews71

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved  https://tmnews71.com/
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-tmnews71