Home Privacy Policy Disclaimer Sitemap Contact About
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৭:৪৩ অপরাহ্ন

বরগুনায় প্রেমিকের সহযোগিতায় স্বামীকে খুন ৮ মাস পর হত্যারহস্য উদঘাটন, গ্রেপ্তার- ২

এম.এস রিয়াদ, বরগুনা জেলা প্রতিনিধি :       
  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৪৫৪ আপডেট পোস্ট

নিজের স্বামীকে হত্যার দায়ে প্রেমিক মো. রাজু মিয়া ও নিহতের স্ত্রী মোসাঃ ফাতিমা মিতুকে গ্রেফতার করেছে বরগুনা থানা পুলিশ।

নিহত স্কুল শিক্ষক নাসির হাওলাদারের বড় ভাই আবদুল জলিলের ছোট ভাই নাসিরের মৃত্যু অস্বাভাবিক মনে হওয়ায় বরগুনা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারী) দুপুরের দিকে থানাপাড়া এলাকা থেকে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে প্রেমিক রাজু ও প্রেমিকা মিতুকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত মোসাঃ ফাতিমা মিতু (২৪) বরগুনা পৌর শহরের ২ নং ওয়ার্ডের শহীদ স্মৃতি সড়কের বাসিন্দা মাহাতাব হোসেন মৃধার মেয়ে। পরকীয়া প্রেমিক সদর উপজেলার ৭ নং ঢলুয়া ইউনিয়নের গোলবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা বারেকের ছেলে রাজু মিয়া (২০)।

নিহত শিক্ষক নাসিরকে হত্যা করে হৃদরোগে মারা গেছেন বলে চালিয়ে দিয়েছেন স্ত্রী। তবে অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এলো হত্যারহস্য। হাসতে হাসতে স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করে নির্মমভাবে ওই শিক্ষককে হত্যা করেছে স্ত্রী ও তার প্রেমিক। হত্যার পরে স্বামী হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে তাড়িগরি করে মৃতদেহ দাফন করে দিয়ে হত্যার মিশন সফল করে সবাইকে বোকা বানিয়েছে যুগলরা। এ ঘটনায় তখন হয়নি কোনো মামলাও।

অনুসন্ধানে গিয়ে ঘাতক রাজুর মোবাইল ফোনে থাকা কল রেকর্ডিং থেকে জানা যায়, গত বছরের মে মাস থেকে বরগুনা সদর উপজেলার গোলবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক নাসির হাওলাদারকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। ২৩ মে রাতে স্বামীকে খাবারের সাথে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে অজ্ঞান করে স্ত্রী মিতু। রাত ১১টার পরে রাজুকে ফোন করে বাসায় আসতে বলে মিতু। রাত ১১টা ৪০ মিনিটে ওই শিক্ষকের বাসায় এসে হাত-পা বেঁধে পায়ের উপরে উঠে বসে রাজু। স্ত্রী মিতু স্বামীর বুকের উপরে উঠে কম্বল দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করলে প্রাণ ভিক্ষা চান ওই শিক্ষক। টানা দু’ঘন্টা ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে নিস্তেজ হয়ে যায় নাসিরের দেহ। সাকসেস হয় কিলিং মিশন। পরদিন সকালে তরিগরি করে তাকে দাফন করা হয়।

হাসতে হাসতে এমন লোমহর্ষক হত্যার পরিকল্পনা এঁটরছিলো নিহত শিক্ষকের স্ত্রী মিতু ও তার পরকীয়া প্রেমিক একই এলাকার বারেকের ছেলে রাজু মিয়া।

এর আগেও বেশ কয়েকবার ওই স্কুল শিক্ষককে হত্যার চেষ্টা করে তার স্ত্রী মিতু।

এলাকাবাসীরা জানান, ঘটনার দিন ছিল শেষ রমজান। সেহরীর কিছুক্ষণ আগে নাসির স্যারের বাড়িতে কান্নাকাটির আওয়াজ পেয়ে আমরা সেখানে ছুটে যাই। গিয়ে দেখি ঘরের দরজা খোলা এবং মিতু ও তার মেয়ে নুসরাত কান্নাকাটি করছে। এসময় নাসির স্যারের মুখে রক্ত দেখেছি আমরা।

স্কুল শিক্ষক নাসিরের বড় ভাই আবদুল জলিল জানান, আমার ভাই অত্যন্ত নরম মানুষ ছিল। এলাকার সবার সাথে তার ভালো সম্পর্ক ছিল। তার স্ত্রী মিতু ছিল বেপরোয়া। আমাদের কাউকে সে সহ্য করতে পারত না। যারা আমার ভাইকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে তাদের বিচার চাই।

বরগুনা সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) শরজিৎ কুমার ঘোষ জানান, নিহত স্কুল শিক্ষক নাসিরের বড় ভাই আঃ জলিলের অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা অভিযান চালিয়ে তাদের উভয়কেই গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। পরে আদালতে সোপর্দ করলে দুজনকেই জেল হাজতে প্রেরণ করেন। ঘটনাটি সত্তিই হত্যাকান্ড কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অভিযোগ পেয়েছি বলেই গ্রেফতার করেছি। তবে আদালতের মাধ্যমে লাশ কবর থেকে তুলে ময়না তদন্তসহ বিষয়টি সঠিকভাবে তদন্ত করা হবে।

এই খবর শেয়ার করে আপনার টাইমলাইনে রেখে দিন Tmnews71

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved www.tmnews71.com
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-tmnews71