Home Privacy Policy Disclaimer Sitemap Contact About
শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৮:৫২ পূর্বাহ্ন

পৃথিবীর আকার: কুরআনের দেখানো পথেই বিজ্ঞান

নিজেস্ব প্রতিবেদক।
  • আপডেটের সময় : সোমবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৩৯ আপডেট পোস্ট

ইসলামী বিশ্বাসের মূল উৎস আল-কুরআন। মুসলমানরা বিশ্বাস করে যে,এটা আল্লাহ পক্ষ থেকে এসেছে এবং তা গোটা মানব জাতির জন্য হেদায়েত। কোরআন যেহেতু সকল যুগের জন্য,তাই তা সকল যুগের জন্যই সামঞ্জস্যপণ্য। যা আজকের বিজ্ঞানও বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক গবেষণার মাধ্যমে স্বীকার করছে।পৃথিবীর আকার নিয়ে আল কুরআনে যা বলা হয়েছে সেই কথাকেই আধুনিক বিজ্ঞানে মেনে নেওয়া হয়েছে।

আল কুরআনে সূরা লুকমানের ২৯ আয়াতে বলা হয়েছে,

أَلَمْ تَرَ أَنَّ اللَّهَ يُولِجُ اللَّيْلَ فِي النَّهَارِ وَيُولِجُ النَّهَارَ فِي اللَّيْلِ وَسَخَّرَ الشَّمْسَ وَالْقَمَرَ كُلٌّ يَجْرِي إِلَى أَجَلٍ مُسَمًّى وَأَنَّ اللَّهَ بِمَا تَعْمَلُونَ خَبِيرٌ (29) ذَلِكَ بِأَنَّ اللَّهَ هُوَ الْحَقُّ وَأَنَّ مَا يَدْعُونَ مِنْ دُونِهِ الْبَاطِلُ وَأَنَّ اللَّهَ هُوَ الْعَلِيُّ الْكَبِيرُ (30)

তুমি কি দেখ না যে, আল্লাহ রাত্রিকে দিবসে প্রবিষ্ট করেন এবং দিবসকে রাত্রিতে প্রবিষ্ট করেন? তিনি চন্দ্র ও সূর্যকে কাজে নিয়োজিত করেছেন; প্রত্যেকেই নির্দিষ্টকাল পর্যন্ত পরিভ্রমণ করে।তুমি কি আরও দেখ না যে, তোমরা যা কর,আল্লাহ তার খবর রাখেন?”(৩১:২৯)

প্রথম যুগে মানুষ বিশ্বাস করত যে, পৃথিবী চেপ্টা ছিল। বহু শতাব্দীব্যাপী মানুষ দূরে সফরে যেতে ভয় পেত কি জানি পৃথিবীর কিনারা থেকে পড়ে যায় কিনা। কিন্তু স্যার ফ্রনকিস ড্র্যাক প্রথম প্রমান করেন যে, পৃথিবী গোলাকার । তিনি ১৫৯৭ সনে পৃথিবীর চারপাশে নৌভ্রমন করেন। আমরা দিবা রাত্রির আবর্তনের ব্যাপারে কোরআনের নিন্মোক্ত আয়াতটি বিবেচনা করতে পারি।

অর্থাৎ রাত আস্তে আস্তে এবং ক্রমান্বয়ে দিনে রূপান্তরিত হয়, অনুরূপভাবে দিন ও আস্তে আস্তে এবং ক্রমান্বয়ে রাতে পরিবর্তিত হয়। পৃথিবী গোলাকৃতির হলেই কেবল এ ঘটনা ঘটতে পারে ।

আমি পৃথিবীকে বিস্তৃত করেছি, তাতে পর্বতমালা স্থাপন করেছি, আর আমি তাতে সব কিছু উদ্গত করেছি সুপরিমিতভাবে। [সুরা : হিজর, আয়াত : ১৯ (তৃতীয় পর্ব)

আধুনিক বিজ্ঞানের বহু আগে কোরআনের এ আয়াত পাঠ করে ইমাম ইবনে হাজম আন্দালুসি (রহ.) পৃথিবী গোলাকার হওয়ার কথা বলেছেন। তিনি একাদশ শতাব্দীতে (৩৮৪-৪৫৬ হিজরি) ইন্তেকাল করেছেন। (ইবনে হাজম, আল-ফিছাল ফিল মিলাল : ১/৩৫২)

আগের আয়াতগুলোর ধারাবাহিকতায় এই দুই আয়াতে বিশ্বজগত সৃষ্টিতে মহান আল্লাহর আরো কিছু নিদর্শনের প্রতি ইঙ্গিত করে বিশ্বনবী (সা.) ও মুমিনদের উদ্দেশ করে বলা হচ্ছে: চন্দ্র ও সূর্যকে নির্দিষ্ট কক্ষপথে আবর্তনের মাধ্যমে দিন ও রাতের সৃষ্টি এবং ঋতুর পরিবর্তন মহান আল্লাহই ঘটান। তিনিই চন্দ্র ও সূর্যকে নির্ধারিত কাজে নিয়োজিত করে দিয়েছেন। আল্লাহর ইচ্ছায় দিন ও রাত্রির একের পর এক আবির্ভাব সম্ভব হয়েছে যা মানুষসহ সব প্রাণী ও উদ্ভিদের বেঁচে থাকার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন।

আয়াতের পরের অংশে বলা হচ্ছে, দিন ও রাতের এই আবর্তন চিরস্থায়ী নয়। এর জন্য আল্লাহ নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ করে দিয়েছেন। তিনি যেদিন ইচ্ছা করবেন সেদিন এই বিশ্বজগতের সব নিয়মকানুন ওলটপালট হয়ে কিয়ামত সংঘটিত হবে। তখন দিবারাত্রির এই আবর্তন বর্তমান সময়ের মতো থাকবে না।

নিম্নের আয়াত দ্বারাও পৃথিবী যে গোলাকার তা বুঝা যায়্‌ আল্লাহ বলেনঃ

তিনি আসমান ও জামিন কে সৃষ্টি করেছেন যথার্থভাবে। তিনি রাতকে দিন দ্বারা আচ্ছাদিত করেন এবং রাত দ্বারা আচ্ছাদিত করেন।”সূরা যোমর -৫

আয়াতে ব্যবহৃত (আরবী) শব্দের অর্থ হলো কুন্ডলী পাকানো বা কোন জিনিসকে প্যাঁচানো । যেমন করে মাথায় পাগড়ী প্যাঁচানো হয়। রাত ও দিনের আবর্তন তখনই সম্ভব যখন পৃথিবী গোলাকার হয়। পৃথিবী বলের মত গোলাকার নয়, বরং মেরুকেন্দ্রিক চেপ্টা।

আরবী শব্দ এর দুটো অর্থ আছে। একটি অর্থ হলো উঠপাখির ডিম।উটপাখীর ডিমের আকৃতির মতই পৃথিবীর আকৃতি মেরুকেন্দ্রিক চেপ্টা । অন্য অর্থ হল ‘সম্প্রসারিত করা’। উভই অর্থই বিশুদ্ধ।

কোরআন এভাবেই পৃথিবীর আকৃতি বিশুদ্ধভাবে বর্ণনা করেছে।অথচ যখন কোরআন যখন নাযিল হয় তখন প্রচলিত ধারনা ছিল পৃথিবী হচ্ছে চেপ্টা।

এই খবর শেয়ার করে আপনার টাইমলাইনে রেখে দিন Tmnews71

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved www.tmnews71.com
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-tmnews71