Home Privacy Policy Disclaimer Sitemap Contact About
শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০৭:২০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের নিরাপদে ঘুমানোর অধিকার নিশ্চিত করব আমরা -বেনজীর আহমেদ

শফিকুজ্জামান শুভ, ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ১ এপ্রিল, ২০২১
  • ৭৩ আপডেট পোস্ট

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন স্থানে হেফজাতে ইসলামের তাণ্ডবের ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ। পুলিশপ্রধান বলেছেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মানুষের নিরাপদে ও নিশ্চিন্তে ঘুমানোর অধিকার আছে। এই অধিকার আমরা নিশ্চিত করব। যারা যার কাছে হামলার ভিডিও ও ছবি আছে তারা যেন তা পুলিশকে সরবরাহ করে। মামলা করেন, আমরা ব্যবস্থা নেব

বৃহস্পতিবার দুপুরে হেফাজতের তাণ্ডবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন শেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের কাছে একথা বলেন তিনি।

পুলিশপ্রধান বলেন, বারবার কেন রাষ্ট্রীয় সম্পতির ওপর আঘাত করা হচ্ছে? তাদের অবস্থানটা কি বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে?

আইজিপি বলেন, আমরা দেখছি প্রায় প্রতিবছরই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এমন ন্যাক্কারজনক হামলা ঘটছে। একইভাবে হাটহাজারীতেও হামলা হচ্ছে। বারবার রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করা হচ্ছে। বারবার কেন রাষ্ট্রীয় সম্পতির ওপর আঘাত করা হচ্ছে? অবস্থানটা কী বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে?

তিনি বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীকে স্পষ্ট করে বলতে চাই, ১৮ কোটি বাংলাদেশি আপনাদের সঙ্গে রয়েছে। একসঙ্গে আমরা ভয়কে অতিক্রম করতে পারব। কোনও বিশেষ গোষ্ঠী কোনও একটি অঞ্চলকে উপদ্রুত এলাকা হিসেবে পরিণত করবে- এটা হতে দিব না।

তিনি বলেন, গত ৫০ বছরে আমাদের কী অর্জন তাহলে! বারবার সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী এভাবে হামলা করছে, ৩০ লাখ শহীদের বিনিময়ে অর্জিত এই অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে।

আইজিপি বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫৭৪টি মাদ্রসা রয়েছে। এখানে ১ লাখ ৩ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। দিনে একজন শিক্ষার্থীর পেছনে একশ’ টাকা খরচ হলে বছরে ৩৫০ কোটি খরচ হয় এসব মাদ্রাসায়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীর প্রতি অনুরোধ করে তিনি বলেন, এই খরচ আপনারাই দিচ্ছেন। দ্বীনের খেদমতের জন্য দিচ্ছেন। আসলেই তারা দ্বীনের খেদমত করছেন? বারবার তারা সহিংসতার ঘটনা ঘটাচ্ছে।

তিনি বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হাটহাজারীতে ভূমি অফিস জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। আগামী ৫০ বছরেও এই রেকর্ড ব্যবস্থার পুনরুদ্ধার হবে কিনা সংশয় রয়েছে। হাজার হাজার মানুষকে ভুগতে হবে।

পুলিশপ্রধান বলেন, বাংলাদেশের মানুষ ঐহিত্যগতভাবে যার যার ধর্ম পালন করে থাকে। ধর্ম ব্যবসায়ী যারা, তাদের দুটি চরিত্র রয়েছে। তারা ওয়াজও করেন, আবার লাঠি নিয়ে মিছিলও করেন। আমাদের এখনই প্রকৃত ধার্মিক লোক ও ধর্ম ব্যবসায়ী- এই দুই শ্রেণির পার্থক্য বুঝতে হবে।

তিনি বলেন, অনেক হুজুরের গাড়ি দেখেন, তারা গাড়ি কেনার টাকা পান কোথায়। দ্বীনের জন্য টাকা দেব, ধর্ম ব্যবসার জন্য টাকা দেব না।

হেফাজতের তাণ্ডবের পর কয়ে কদিন পার হয়ে গেছে। এখনও কেন জড়িতরা গ্রেপ্তার হয়নি- এমন প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, অধৈর্য হওয়ার কিছু নেই। যারা এই অপরাধের সঙ্গে জড়িত তাদের প্রত্যেককেই আইনের আওতায় আনা হবে।

এসময় র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন, এসবির প্রধান মনিরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন, পুলিশের ডিআইজি অপারেশনসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

এই খবর শেয়ার করে আপনার টাইমলাইনে রেখে দিন Tmnews71

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved www.tmnews71.com
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-tmnews71